রাত ২:১১ । ৮ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ । ২১শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ । ৯ই রমজান, ১৪৪২ হিজরি


জরুরী নোটিশ/বিজ্ঞপ্তিঃ
* সর্বশেষ খবর সবার আগে পেতে ভিজিট করুন www.nilakashbarta.com – নীলাকাশ বার্তা ডট কম। ধন্যবাদ। জরুরী ভিত্তিতে বাংলাদেশের জনপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোটাল www.nilakashbarta.com – নীলাকাশ বার্তা ডট কম পত্রিকায় জেলা/উপজেলা ভিত্তিক প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে, আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন। অফিস : সুন্দরবন টাওয়ার (২য় তলা), নূরনগর বাজার, নূরনগর-৯৪৫১, শ্যামনগর, সাতক্ষীরা, ঢাকা, বাংলাদেশ। মোবাঃ +৮৮০১৮৮৫-১৭৫৬৮০, +৮৮০১৯৫৬-৬৯৫৯৮১, ই-মেইল : nilakashbarta@gmail.com, nuruzzamannews@gmail.com, ফেসবুক : www.facebook.com/nilakashbarta * To get the latest news, visit www.nilakashbarta.com first. Thanks. District/Upazila based representatives will be appointed in the popular online news portal www.nilakashbarta.com of Bangladesh on an urgent basis. Those interested should contact. Office: Sundarbans Tower (2nd Floor), Nurnagar Bazar, Nurnagar-9451, Shyamnagar, Satkhira, Dhaka, Bangladesh. Mob: +8801885-175680, + 801958-695971, E-mail: nilakashbarta@gmail.com, nuruzzamannews@gmail.com, Facebook: www.facebook.com/nilakashbarta
শিরোনাম

ছেলের বউ যে কারণে পছন্দ হয়েছে মৌসুমীর

Spread the love

বিনোদন বার্তাঃ ভালোবেসে দীর্ঘ দুই যুগেরও বেশি সময় বা ২৫ বছর আগে বিয়ে করেছিলেন ঢালিউডের জনপ্রিয় অভিনেত্রী মৌসুমী ও অভিনেতা ওমর সানি।

এক ছেলে ও এক মেয়েকে নিয়ে রাজধানীর গুলশানে তাঁদের সুখের সংসার। সেই সংসারে এবারে যোগ হচ্ছে নতুন অতিথি। সপ্তাহ দুয়েক পর মৌসুমী- সানির ছেলে ফারদীনের বিয়ে। ছেলের জন্য কানাডাপ্রবাসী এক রূপবতী তরুণীকে পছন্দ করেছেন এই তারকা দম্পতি। তাঁদের ছেলের হবু বউয়ের নাম আয়েশা।

কুমিল্লার মেয়ে আয়েশা জন্মসূত্রে বাংলাদেশি হলেও মা- বাবার সঙ্গে কানাডায় থাকেন। তাঁর পড়াশোনা ও বেড়ে ওঠা সেখানেই। কয়েক মাসে আগে ফারদীনের সঙ্গে আয়েশার পরিচয়। একপর্যায়ে তাঁদের মধ্যে তৈরি হয় বন্ধুত্ব, এরপর ভালো লাগা। সে কথা দুই পরিবারের সঙ্গে ভাগাভাগি করেন দুজন। এরপর পারিবারিক আলোচনার ভিত্তিতে বিয়ের দিনক্ষণ ঠিক করা হয়।

ছেলের বিয়ে প্রসঙ্গে মৌসুমী আগামি ৫ এপ্রিল ঢাকার একটি পাঁচতারা হোটেলে বর–কনের গায়েহলুদ। ৯ এপ্রিল আরেক পাঁচতারা হোটেলে বিবাহোত্তর সংবর্ধনা অনুষ্ঠান। ছেলের বিয়ে নিয়ে ভীষণ ব্যস্ত সময় পার করছেন মৌসুমী–ওমর সানি। তাঁদের ছেলে ফারদীন কয়েক বছর আগে থেকে নাটক–সিনেমা পরিচালনা শুরু করেছিলেন। তিনি ‘ডেস্টিনেশন’ নামে একটি টেলিছবি নির্মাণ করেছেন।

আরও পড়ুন

আপন দুই ভাইসহ তিন শিশুর লাশ উদ্ধার

নীলাকাশ বার্তাঃ গাইবান্ধা জেলার সুন্দরগঞ্জ উপজেলায় বালুর গর্তে চাপা পড়ে তিন ভাইয়ের মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। শুক্রবার দুপুরে উপজেলার বেলকা কিশামত সদরে এই ঘটনাটি ঘটেছে। পরে ওই দিন বিকালে তাদের লাশ সেখান থেকে তোলা হয়।

নিহতরা হলো- গাইবান্ধা সদর উপজেলার বারোবলদিয়া গ্রামের মাসুদ মিয়ার দুই ছেলে আবির হোসেন (৫), হজরত আলী (৭) এবং বেলকা কিশামত সদরে শফিকুল ইসলামের ছেলে মামাতো ভাই রিফাত মিয়া (৩)।

পরিবারের লোকজন ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, নানার বাড়িতে বেড়াতে আসে গাইবান্ধার সদর উপজেলার খোলাহাটি ইউনিয়নের বারোবলদিয়া গ্রামের মাসুদ মিয়ার দুই ছেলে আবির হোসেন ও হজরত আলী সকালে মামাতো ভাই রিফাত মিয়াকে নিয়ে খেলতে যায়।

বেলকা কিশামত সদর গ্রামে বালু দিয়ে রাস্তা নির্মাণ করা হচ্ছে। সেখানে দীর্ঘ দিন ধরে ভেকু দিয়ে বালু তোলার কারণে রাস্তার পাশে গর্তের সৃষ্টি হয়। সেই গর্তে তারা খেলার সময় পাড়ের একাংশ ধসে পড়লে তারা সবাই চাপা পড়ে।

এতে ঘটনাস্থলেই তাদের মৃত্যু ঘটে। এদিকে দুপুরে তারা বাড়িতে না ফিরলে পরিবারের লোকজন খোঁজাখুঁজি শুরু করেন। এক পর্যায়ে বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে বাড়ির পার্শ্ববর্তী ওই গর্ত থেকে একে একে তিনটি লাশ উদ্ধার করা হয়।

ঘটনার সতত্যা স্বীকার করে বেলকা ইউপি চেয়ারম্যান ইব্রাহিম খলিলুল্লাহ বলেছেন, ঘটনাটি অত্যন্ত মর্মান্তিক।

সুন্দরগঞ্জ থানার পরিদর্শক তদন্ত মোঃ বুলবুল ইসলাম ও এসআই সেলিম রেজা বলেছেন, এ নিয়ে থানায় ইউডি মামলা দায়ের হয়েছে।

আরও পড়ুন

“বেরিয়ে এলো হিন্দু গ্রামে হামলার প্রকৃত রহস্য!”

নীলাকাশ বার্তাঃ সুনামগঞ্জ জেলার শাল্লা উপজেলায় হবিবপুর ইউনিয়নের নোয়াগাঁওয়ে হিন্দুদের বাড়িতে ভাংচুর ও লুটপাটের ঘটনার রহস্য। আলোচিত এই ঘটনার বিষয়ে বেরিয়ে আসছে নেপথ্যে থাকা অনেক অজানা তথ্য।”

স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, হামলা, ভাংচুর ও লুটপাটের ঘটনার সঙ্গে মামুনুল হক বিরোধী ফেসবুক স্ট্যাটাসের কোনো সম্পর্ক নেই বরং জল মহাল নিয়ে পূর্ব বিরোধের জের ধরে ঝুমন দাশ আপনের আপত্তিকর ফেসবুক স্ট্যাটাসকে হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করেই এ ন্যক্কারজনক ঘটনা ঘটানো হয়।

প্রত্যক্ষদর্শী অসীম চক্রবর্তী ও দীপক দাস গনমাধ্যমকে জানিয়েছেন, “হামলার মূল নেতৃত্বে ছিলেন দিরাই উপজেলার নাচনী গ্রামের বর্তমান ইউপি সদস্য সরমঙ্গল ইউনিয়ন যুবলীগের ওয়ার্ড সভাপতি শহীদুল ইসলাম স্বাধীন ও একই গ্রামের পক্কন মিয়া।”

তারা বলেছেন, “স্বাধীন মেম্বার ও পক্কন মিয়ার নেতৃত্বে মাইকে ঘোষণা দিয়ে তারা লোক জনকে একত্রিত করে গ্রামে হামলা চালায়।

সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, “নাচনী গ্রামের স্বাধীন মেম্বার স্থানীয় বরাম হাওরের কুচাখাই বিলের ইজারাদার। জলমহাল নিয়ে স্বাধীনের সঙ্গে কিছু দিন ধরে ফেসবুকে কটূক্তির দায়ে গ্রেফতারকৃত যুবক ঝুমন দাশসহ নোয়াগাঁওয়ের কিছু লোকের বিরোধ চলছিল।”

জলমহালে অবৈধ ভাবে মৎস্য আহরণ ও জল মহালের পানি শুকানোর ফলে চাষাবাদে সেচের পানির সংকটের ব্যাপারে নোয়াগাঁওয়ের হরিপদ দাশ ও মুক্তিযোদ্ধা জগদীশ দন্দ্র দাস শাল্লা উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর স্বাধীন মেম্বারের বিরুদ্ধে অভিযোগ করে।

অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে গত ৮ জানুয়ারি সরেজমিন কুচাখাই বিলে গিয়ে অবৈধ শ্যালো মেশিনসহ মাছ ধরার বিভিন্ন উপকরণ জব্দ করে জলমহালের পানি ছেড়ে দেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আল মোক্তাদির হোসেন।”

“এ সময় বাঁধ কাটার কাজ করেন নোয়াগাঁও গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা অকিল চন্দ্র দাসের ছেলে অমর চন্দ্র দাস ও পানি ছেড়ে দেয়ার দৃশ্য ফেসবুকে প্রচার করেন একই গ্রামের ঝুমন দাশ।”

এ ঘটনায় স্বাধীন মেম্বার নোয়াগাঁও হিন্দু সম্প্রদায়ের লোক জনকে হুমকি- ধমকি দিয়ে আসছিলেন বলে অভিযোগ করেন ভুক্তভোগীরা।”

” ঝুমন দাসের এ ইস্যুকে কাজে লাগিয়ে হেফাজতের অনুসারী ও তার নিজস্ব লোকদের দিয়ে বুধবার নোয়াগাঁও গ্রামে ভাংচুর ও লুটপাট করেছে বলে অভিযোগ করেন গ্রামের অনেক ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার।”

ভুক্তভোগীরা দাবি করেছেন, “মামুনুল হকের অনুসারীদের উসকে দিয়ে নিজের শরীরের ঝাল মেটাতে হিন্দুদের বাড়িতে তাণ্ডব চালান স্বাধীন ও তার অনুসারীরা।”

নোয়াগাঁও গ্রামের ক্ষতিগ্রস্ত শৈলেন চন্দ্র দাশ জানিয়েছেন, “স্বাধীন ও পক্কনের নেতৃত্বে আমাদের ঘরবাড়ি ভাংচুর ও লুটপাট করা হয়েছে”। তারা আমার ঘরের টাকা -পয়সা ও অলঙ্কার লুট করে নিয়ে গেছেন। স্বাধীনের সঙ্গে আমাদের গ্রামবাসীর ঝামেলা দীর্ঘদিনের।

সে বরাম হাওরের কুচাখাই বিল সেচতে চায়, আর আমরা গ্রামবাসী বাধা দেই। বিল সেচার কারণে জমিতে পানি দেয়া যায় না। পানির অভাবে জমি ও ক্ষেত নষ্ট হচ্ছে। এ বিষয়ে আমরা ইউএনও এর কাছে অভিযোগ করেছি। অভিযোগকারী ছিলেন আমার কাকা হরিপদ দাশ। এ কারণেই হরিপদ বাবুর আত্মীয় স্বজনের বাড়িঘর বেশি ক্ষতি করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *