রাত ৮:৩২ । ২১শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ । ৬ই মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ । ২২শে রজব, ১৪৪২ হিজরি


জরুরী নোটিশ/বিজ্ঞপ্তিঃ
* সর্বশেষ খবর সবার আগে পেতে ভিজিট করুন নীলাকাশ বার্তা ডট কম। ধন্যবাদ। জরুরী ভিত্তিতে বাংলাদেশের জনপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোটাল নীলাকাশ বার্তা ডট কম পত্রিকায় জেলা/উপজেলা ভিত্তিক প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে, আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন। অফিস : সুন্দরবন টাওয়ার (২য় তলা), নূরনগর বাজার, নূরনগর-৯৪৫১, শ্যামনগর, সাতক্ষীরা, ঢাকা, বাংলাদেশ। মোবাঃ +৮৮০১৮৮৫-১৭৫৬৮০, +৮৮০১৯৫৬-৬৯৫৯৮১, ই-মেইল : nilakashbarta@gmail.com, nuruzzamannews@gmail.com, ফেসবুক : https://www.facebook.com/nilakashbarta
শিরোনাম

” বাস ও ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে ৬ জন নিহত, আহত ১৫”

 

নীলাকাশ বার্তাঃ “বগুড়া জেলার শেরপুর উপজেলায় যাত্রীবাহী বাস ও পাথর- বোঝাই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে কমপক্ষে ৬ জন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও অন্তত ১৫ জন যাত্রী । আহতদের বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।”

“রবিবার (২১ ফেব্রুয়ারি) সকাল ছয়টার দিকে উপজেলার ঢাকা- বগুড়া মহাসড়কের পৌরশহরের কলেজরোড এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।” তাৎক্ষণিক ভাবে হতাহতদের পরিচয় মেলেনি।” “এদিকে মহাসড়কের মধ্যে দুর্ঘটনা কবলিত বাস-ট্রাক উল্টে পড়ে থাকার কারণে যানচলাচল বন্ধ রয়েছে”। ফলে মহাসড়কের তিন কিলোমিটার জুড়ে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত ফায়ার সার্ভিস ও পুলিশের যৌথ উদ্ধার অভিযান চলছে।”

“শেরপুর ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের স্টেশন অফিসার রতন হোসেন জানান, “ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা বগুড়াগামী এসআর ট্রাভেলস পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী বাস ওই স্থানে পৌঁছালে বিপরীত দিক থেকে আসা পাথরবোঝাই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়।” এতে তাৎতক্ষিকভাবে ছয়জন নিহত হন। একইসঙ্গে আহত হন আরও অন্তত ১৫ যাত্রী। তাদের বগুড়ায় শজিমেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।”

 

আরও পড়ুন

“দুই গ্রুপের সংঘর্ষে নিউজ পোর্টাল বার্তা বাজারের সাংবাদিক নিহত”

নীলাকাশ বার্তাঃ “নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলায় আওয়ামী লীগের কাদের মির্জা ও বাদল সমর্থকদের দু’গ্রুপের সংঘর্ষের খবর সংগ্রহ করতে গিয়ে গুলিবিদ্ধ সাংবাদিক বুরহান উদ্দিন মুজাক্কির মৃত্যুবরণ করেছেন।”

“শনিবার রাত পৌনে ১১টায় ঢাকা মেডিকেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি।”

“কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান শাহাব উদ্দিন যুগান্তরকে এ তথ্য নিশ্চিত করেন।”

“সাংবাদিক বুরহান উদ্দিন মুজাক্কির অনলাইন পোর্টাল বার্তা বাজারের স্থানীয় প্রতিনিধি।”

“উপজেলার চাপরাশিরহাট বাজারে শুক্রবার বিকালে ওই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।”

“বুকে ও গলায় গুলিবিদ্ধের ঘটনার পর মুজাক্কিরকে প্রথমে কোম্পানীগঞ্জ হাসপাতালে, পরে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করার পর জরুরিভাবে তাকে রক্ত দেয়া হয়। অবস্থার অবনতি ঘটলে রাতেই মুজাক্কিরকে ঢাকা মেডিকেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে তিনি লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়।”

“লাইফ সাপোর্টে থাকা সাংবাদিক মুজাক্কিরের চিকিৎসার জন্য বিএনপি নেতা ঢাকার ব্যবসায়ী ও শিল্পপতি মেট্রো হোমসের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব ফখরুল ইসলাম ফারুক ২০ হাজার টাকা দেন। এছাড়াও ঢাকার অপর এক ব্যাবসায়ী ও আওয়ামী লীগ নেতা নাজমুল হক নাজিম সাংবাদিক মুজাক্কিরের চিকিৎসার বিষয়ে সার্বক্ষণিক খোজ-খবর রেখেছিলেন।”

আরও পড়ুন

Leaving husband and children to marry cricketer Nasir, important information explosion!

Nilakash Barta: “Nasir Hossain, a one-time regular face of the Bangladesh national team, got married this week.

“The all-rounder of the national team is still floating in the comment box of those posts wishing good luck to the fans.” In the meantime, explosive information was leaked, which shocked the country’s stadium, including Nasir’s fans. ”

It is learned that this is not the first marriage of Nasir’s wife Tamima Hossain Tammi. “She has another husband and a 6-year-old daughter in that family.” “And leaving that husband-child, Tamima tied the knot with Nasir.”

“Tamima’s husband’s name is Rakib Hasan,” he said, adding that he had been married to Tamima for 11 years. “They have an 8-year-old daughter in their house.” “Tamima has tied the knot with cricketer Nasir without divorcing him.”

“Rakib Hasan is going to take legal action in this regard.” “Meanwhile, Rakib has lodged a GD with the Uttara West police station in the capital.”

“Uttara West Police Station OC Shah Akhtaruzzaman Elias confirmed the matter to GD.” A national daily Jugantar in Dhaka has received a copy of that GD. ”

A representative of the newspaper contacted Rakib Hasan about the matter. Rakib Hasan told the newspaper on his mobile phone, “I got married to Tamima on February 26, 2011 at a price of Tk 300,000.”

“About four years ago, I borrowed a few lakh rupees from my brother and got Tamima a job at Saudi Airlines.” “She (Tamima) has been changing since she got this job.”

“I keep getting closer to her because of traveling around the country and abroad by plane. In the meantime, we bring her mother to our house to take care of our daughter.” It does more harm than good. ”

To avoid a fight, I have been renting a house alone for the last one year. ”

Rakib Hasan said in an applause, “My daughter is crying when she sees the video of Nasir’s wedding posted on Facebook.” We’re not divorced yet. “What’s wrong with my stupid daughter?” Who is crying now watching the video of her mother’s second marriage? “Tamima’s first husband also asked such a question.”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *