রাত ৮:২৭ । ২১শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ । ৬ই মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ । ২২শে রজব, ১৪৪২ হিজরি


জরুরী নোটিশ/বিজ্ঞপ্তিঃ
* সর্বশেষ খবর সবার আগে পেতে ভিজিট করুন নীলাকাশ বার্তা ডট কম। ধন্যবাদ। জরুরী ভিত্তিতে বাংলাদেশের জনপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোটাল নীলাকাশ বার্তা ডট কম পত্রিকায় জেলা/উপজেলা ভিত্তিক প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে, আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন। অফিস : সুন্দরবন টাওয়ার (২য় তলা), নূরনগর বাজার, নূরনগর-৯৪৫১, শ্যামনগর, সাতক্ষীরা, ঢাকা, বাংলাদেশ। মোবাঃ +৮৮০১৮৮৫-১৭৫৬৮০, +৮৮০১৯৫৬-৬৯৫৯৮১, ই-মেইল : nilakashbarta@gmail.com, nuruzzamannews@gmail.com, ফেসবুক : https://www.facebook.com/nilakashbarta
শিরোনাম

“মারা গেলেন জনপ্রিয় অভিনেতা এটিএম শামসুজ্জামান”

নীলাকাশ বার্তাঃ “একুশে পদকপ্রাপ্ত অভিনেতা এটিএম শামসুজ্জামান মারা গেছেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।”

“এটিএম শামসুজ্জামান ১৯৪১ সালের ১০ সেপ্টেম্বর নোয়াখালীর দৌলতপুরে নানাবাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন”। ১৯৬১ সালে পরিচালক উদয়ন চৌধুরীর ‘বিষকন্যা’ সিনেমায় সহকারী পরিচালক হিসেবে প্রথম কাজ শুরু করেন।” তিনি প্রথম কাহিনি ও চিত্রনাট্য লিখেছিলেন ‘জলছবি’ সিনেমার জন্য।”

“অভিনেতা হিসেবে এটিএম শামসুজ্জামানের অভিষেক ১৯৬৫ সালে। “এরপর ১৯৭৬ সালে আমজাদ হোসেন পরিচালিত ‘নয়নমণি’ চলচ্চিত্রে খলনায়ক হিসেবে তিনি আলোচনা আসেন।”

“শিল্পকলায় অসামান্য অবদানের জন্য ২০১৫ সালে তাকে একুশে পদকে ভূষিত করা হয় এই অভিনেতাকে।”

আরও পড়ুন

শনিবার সকাল- সন্ধ্যা হরতালের ডাক

নীলাকাশ বার্তাঃ নোয়াখালী জেলার কোম্পানীগঞ্জ উপজেলায় শনিবার সকাল- সন্ধ্যা হরতালের ডাক দিয়েছেন বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জা। “শুক্রবার রাত ৯টায় ফেসবুক লাইভে এসে কর্মসূচি ঘোষণা করেন তিনি।”

“শুক্রবার বিকালে চাপরাশিরহাট বাজারে কাদের মির্জা ও মিজানুর রহমান বাদল অনুসারী আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে ৫০-৬০ জন নেতাকর্মী আহত হন।” আহতদের কাদের মির্জা নিজের অনুসারী দাবি করে এবং তাকে হত্যা চেষ্টার অভিযোগ তুলে এর প্রতিবাদে এ হরতালের কর্মসূচি দেয়া হয়।”

“এদিকে সংঘর্ষের ঘটনাস্থল থেকে আসার সময় চরকাঁকড়া টেকেরবাজার নামক স্থানে বাদল গ্রুপের সদস্য হিসেবে পরিচিত ফখরুল ইসলাম সবুজের নেতৃত্বে রাস্তায় ব্যারিকেড দিলে আবদুল কাদের মির্জা গাড়িবহরসহ অবরুদ্ধ হয়ে পড়েন।” কয়েক ঘণ্টা পর কোম্পানীগঞ্জ থানার পুলিশ, অতিরিক্ত রিজার্ভ পুলিশ ও র্যাবের কয়েকটি গাড়ি গিয়ে সড়ক অবরোধ তুলে দিয়ে মেয়র কাদের মির্জাকে উদ্ধার করে নিয়ে আসে।”

“বসুরহাট পৌরসভা মিলনায়তনে নেতাকর্মী ও সাংবাদিকদের কাদের মির্জা বলেন, “এমপি একরাম চৌধুরীর বাড়িতে শুক্রবার দুপুরে বৈঠক শেষে সন্ত্রাসীদের দুই ভাগে বিভক্ত করে আমার নেতাকর্মীদের ওপর হামলা চালিয়েছে। এর মধ্যে বাদলের নেতৃত্বে চাপরাশিরহাট ও সবুজের নেতৃত্বে টেকেরবাজারে হামলার ঘটনা ঘটে”। এসব ঘটনায় মিজানুর রহমান বাদল, চেয়ারম্যান আবদুর রাজ্জাক, নজরুল ইসলাম শাহীন, হাসিবুস শাহীদ আলোক, ফখরুল ইসলাম সবুজ, ভাগিনা ফখরুল ইসলাম রাহাত, মাহবুবুর রশীদ মঞ্জু, মাহবুবুর রহমান আরিফ অস্ত্র নিয়ে গুলি করেছে।”

কাদের মির্জা অভিযোগ করেন, “প্রশাসনের সহযোগিতা ছাড়া এ আক্রমণ সম্ভব নয়।
অন্য দিকে নোয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মিজানুর রহমান বাদল এ ঘটনার জন্য মেয়র আবদুল কাদের মির্জা ও তার সমর্থকদের দায়ী করেছেন। তিনি তার ফেসবুক লাইভে এসে বলেন, “গত দুই মাস যাবত আবদুল কাদের মির্জা বিভিন্ন মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরসহ দলের অনেক সিনিয়র নেতাদের কটাক্ষ করে বক্তব্য দিয়ে নেতাকর্মীদের মাঝে উত্তেজনা সৃষ্টি করে আসছেন।” এর প্রতিবাদে একটি সংবাদ সম্মেলন করার জন্য শুক্রবার বিকালে তার এলাকা চরফকিরা ইউনিয়নের সব ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের নেতাদের নিয়ে একটি প্রস্তুতি মূলক বৈঠকের ডাক দেয়া হয়”। এতে কাদের মির্জার নেতৃত্বে শত শত অস্ত্রধারী সেখানে হামলা চালায়।” এতে তার বহু নেতাকর্মী আহত হয়েছেন বলে তিনি দাবি করেন।”

প্রসঙ্গত, “নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার চাপরাশিরহাট বাজারে শুক্রবার বিকালে কাদের মির্জা ও মিজানুর রহমান বাদল সমর্থিত আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের মধ্যে দফায় দফায় ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে স্থানীয় এক সংবাদকর্মীসহ উভয়পক্ষের অর্ধশতাধিক লোক আহত হয়েছেন।” পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ লাঠিচার্জ, শটগানের ফাঁকা গুলি ও টিয়ারশেল নিক্ষেপ করেছে।” এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে।”

Saturday morning-evening strike call

Nilakash Barta: Mayor of Basurhat Municipality Abdul Quader Mirza has called for a morning-evening strike in Companiganj upazila of Noakhali district on Saturday morning. “He came to Facebook Live at 9pm on Friday and announced the program.”

“On Friday afternoon, 50-60 leaders and activists were injured in a bloody clash between two groups of Awami League followers of Quader Mirza and Mizanur Rahman Badal at Chaprashirhat Bazar.” The injured were identified as Kader Mirza’s followers and the strike was called in protest.

“Meanwhile, Abdul Quader Mirza along with his convoy was blocked when a barricade was set up on the road led by Fakhrul Islam Sabuj, known as a member of the Badal group, at Charkankara Tekerbazar while returning from the scene of the clash.” After a few hours, the police of Kompaniganj police station, additional reserve police and some vehicles of RAB went and lifted the road blockade and rescued Mayor Quader Mirza.

“After the meeting at MP Ekram Chowdhury’s house on Friday afternoon, the terrorists attacked my leaders and activists by dividing them into two groups,” Quader Mirza told reporters at the Basurhat Municipality auditorium. Among them were Mizanur Rahman Badal, Chairman Abdur Razzak, Nazrul Islam Shahin, Hasibus Shahid Alok, Fakhrul Islam Sabuj, niece Fakhrul Islam Rahat, Mahbubur Rashid Monju, Mahbubur Rahman and others. Shot. ”

Quader Mirza complained, “The attack is not possible without the cooperation of the administration. On the other hand, Noakhali district Awami League organizing secretary Mizanur Rahman Badal blamed Mayor Abdul Quader Mirza and his supporters for the incident. He came on his Facebook live and said,”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *