সন্ধ্যা ৭:৪৭ । ২১শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ । ৬ই মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ । ২২শে রজব, ১৪৪২ হিজরি


জরুরী নোটিশ/বিজ্ঞপ্তিঃ
* সর্বশেষ খবর সবার আগে পেতে ভিজিট করুন নীলাকাশ বার্তা ডট কম। ধন্যবাদ। জরুরী ভিত্তিতে বাংলাদেশের জনপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোটাল নীলাকাশ বার্তা ডট কম পত্রিকায় জেলা/উপজেলা ভিত্তিক প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে, আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন। অফিস : সুন্দরবন টাওয়ার (২য় তলা), নূরনগর বাজার, নূরনগর-৯৪৫১, শ্যামনগর, সাতক্ষীরা, ঢাকা, বাংলাদেশ। মোবাঃ +৮৮০১৮৮৫-১৭৫৬৮০, +৮৮০১৯৫৬-৬৯৫৯৮১, ই-মেইল : nilakashbarta@gmail.com, nuruzzamannews@gmail.com, ফেসবুক : https://www.facebook.com/nilakashbarta
শিরোনাম

কয়েকটি পিলারের ওপর নির্মিত পুকুরে ধসে পড়া সেই ভবন!

ঢাকা প্রতিনিধিঃ “ঢাকার কেরানীগঞ্জে পুকুরে ধসে পড়া তিনতলা ভবনটি কয়েকটি পিলারের ওপর নির্মাণ করা হয়েছিল বলে জানিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অমিত দেবনাথ।”

“আজ শুক্রবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে উপজেলার মধ্য চড়াইল এলাকায় ওই ভবনটি পুকুরে পুরোপুরি ধসে পড়ে। “এ সময় ভবনে থাকা সাত বাসিন্দার মধ্যে দুজন বের হতে সক্ষম হন।”

“খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের উদ্ধার কর্মীরা ঘটনাস্থলে এসে উদ্ধার তৎপরতা শুরু করেন এবং ভবনে আটকেপড়া বাকি পাঁচ জনকে আহতাবস্থায় উদ্ধার করেন”। আহতদের মধ্যে এক জনের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাকে রাজধানীর মিটফোর্ড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।”

ইউএনও অমিত দেবনাথ আরও জানিয়েছেন, “সামান্য কয়েকটা পিলারের ওপর বাড়িটি নির্মাণ করা হয়েছিল”। যার কারণে এটি ধসে পড়েছে।” ভবনটি পড়ার সময় পাশের দুটি ভবনেও ফাটল দেখা দিয়েছে।” আমরা তাৎক্ষণিক ওই দুটি ভবন থেকে লোক জনকে সরিয়ে নিয়েছি।” “পাশাপাশি দুর্ঘটনা এড়াতে সেখানকার বিদ্যুৎ ও গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে।”

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, “জলাশয়ের পাড়ে কয়েকটি পিলারের ওপর ভবনটি নির্মাণ করা হয়েছিল। “ওই জলাশয়ের পাড়ে এ রকম আরও কয়েকটি ভবন রয়েছে। সব ভবনই নিয়মবহির্ভূতভাবে নির্মিত হয়েছে। “চরম নিরাপত্তাঝুঁকি নিয়ে তৈরি এসব ভবনের মধ্যে জানে আলমের মালিকানাধীন তিনতলা বাড়িটি পুকুরের মধ্যে পুরোপুরি ধসে পড়েছে।” ভবনটিতে জানে আলমের পরিবার থাকত।”

কেরানীগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের সিনিয়র স্টেশন অফিসার ফারুক আহমেদ গণমাধ্যম কর্মীরা জানিয়েছেন, “খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের পাঁচটি ইউনিট ঘটনাস্থলে পৌঁছে উদ্ধার তৎপরতা শুরু করে”। ভবনের মধ্যে আটকেপড়া পাঁচজনকে উদ্ধার করা হয়েছে।”

তিনি আরও বলেছেন, “যথাযথ নিয়ম না মেনে ভবনটি পুকুর পাড়ে তৈরি করা হয়েছিল। নরম মাটি ও পিলারের ওপর থাকায় বাড়িটি পুকুরের মধ্যে হেলে পড়ে।”

 

আরও পড়ুন

“মধ্যে রাতে মা- মেয়েকে কুপিয়ে হত্যা, সৎ ছেলে আটক”

,নীলাকাশ বার্তাঃ আজ শুক্রবার মধ্যে রাতে সিলেট শহরতলির শাহপরান থানা এলাকায় একটি বাড়িতে মা ও ৯ বছরের মেয়েকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে।”

এই সময় মা-মেয়ের লাশের পাশে আরেক শিশুকে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে। এ ঘটনায় কিশোর বয়সী সৎ ছেলেকে আটক করেছে পুলিশ। শুক্রবার গত রাত ১২টার দিকে শহরের বিআইডিসি মহল্লার একটি বাড়িতে এ ঘটনাটি ঘটেছে। নিহত নারীর নাম রুবিয়া বেগম (৩০) ও তাঁর মেয়ের নাম মাহা বেগম। ছুরিকাঘাতে আহত শিশুর নাম তাহসিন (৭)। তাহসিনকে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।” তার অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানা গেছে।

পুলিশ জানিয়েছে, প্রতিবেশীদের মাধ্যমে খবর পেয়ে পুলিশ ওই বাড়িতে যায়”।

“পারিবারিক কলহের জের ধরে সৎ মা -ভাই- বোনকে দা দিয়ে কুপিয়ে ও ছুরিকাঘাত করে কিশোর”। ঘটনাস্থলে মা- মেয়ে মারা যান। দুই জনের পুরো শরীরে এলোপাতাড়ি কোপ ও ছুরিকাঘাতের চিহ্ন রয়েছে।”

“শয়নকক্ষের খাটের তোশকে আগুন ধরিয়ে বাইরে থেকে দরজা বন্ধ করে দেওয়ার সময় পুলিশ কিশোরকে আটক করেছে।”

“সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে কর্তব্যরত চিকিৎসক বলেছেন, আহত শিশুর অবস্থা সংকটাপন্ন। তাকে অস্ত্রোপচার কক্ষে নিয়ে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। পুলিশ মা -মেয়ের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য মেডিকেল কলেজের মর্গে নিয়ে গেছে। ঘটনার পর থেকে ওই এলাকায় চাপা আতঙ্ক বিরাজ করছে। এলাকা বাসি প্রকৃত অপরাধীকে সর্বোচ্চ শাস্তির দাবি জানিয়েছেন।

 

আরও পড়ুন

 

“শ্যামনগরে অবৈধ লবন পানি উত্তোলনের নোটিশ দিয়েও বন্ধ হয়নি”

শ্যামনগর (সাতক্ষীরা) প্রতিনিধিঃ সাতক্ষীরা জেলার শ্যামনগর উপজেলার নূরনগর ইউনিয়নের পল্লীতে অবৈধ ভাবে কালিন্দী নদীর বেঁড়ীবাঁধ ছিদ্র করে লবন পানি উত্তোলনের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছেন স্থানীয় জমির মালিকগন।”

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, শ্যামনগর উপজেলার নুরনগরের কুলতলী রামচন্দ্রপুর মৌজার ২ ও ৩ নং বেল্টে লবন পানির মৎস্য ঘের পরিচালিত হয়ে আসছে। কিন্তু লবন পানি উত্তোলনের ফলে জমির উর্বরতা কমে যাচ্ছে। যার ফলে জমির মালিকগন ধান চাষ করবেন বলে প্রস্তুতি গ্রহণ করছেন। তবে কিছু স্বার্থান্বেষী মহল মৎস্য ঘের আরো বাড়ানোর জন্য জোর পূর্বক আরো বেশি লবন পানি প্রবাহিত করছেন। পানি প্রবাহ বন্ধের জন্য জমির মালিকগণ বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড, কালিগঞ্জ, সাতক্ষীরা বরাবর ৪৮ জন স্বাক্ষরিত একটি আবেদন দাখিল করেছেন।”

পরবর্তিতে কালিগঞ্জ উপ- সহকারী প্রকৌশলী/ শাখা কর্মকর্তা তন্ময় হালদার স্বাক্ষরিত ২৩নং স্মারকে বেঁড়িবাঁধের নিচে অবৈধভাবে পাইপ স্থাপন করে লবন পানি উত্তোলন বন্ধের নোটিশ প্রদান করেন।” কিন্তু নোটিশের তোয়াক্কা না করে কিছু কুচক্রী মহল তাদের কার্যক্রম আরো বেগবান করে চলেছেন।” “দিশেহারা কৃষকগন সর্বশেষ উপায় হিসেবে মানবন্ধ করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন”। স্থানীয় প্রশাসনের আশু হস্থক্ষেপ ছাড়া সমস্য সমাধান হবে না বলে মনে করছেন সর্বসাধারণ।”

এবিষয়ে এলাকায় দায়িক্তরত কর্মকর্তা কালিগঞ্জ বাপাউবো এর উপ-সহকারি প্রকৌশলী তন্ময় হালদার সাংবাদিকদের বলেন, অভিযোগের ভিত্তিতে “আমরা অবৈধ ভাবে লবন পানি উত্তোলন বন্ধের নোটিশ করি। অবৈধ ভাবে লবন পানি উত্তোলন কেন বন্ধ করা সম্ভব হয়নি? এমন এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, কিছুদিন আগে নোটিশ দেওয়া হয়েছে সাত দিনের মধ্যে আমরা বিষয়টি সুরাহ করব। ”

এবিষয়ে উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী মোঃ রাশেদুর রহমান বলেন, “ইতিমধ্যে আমরা এসব ব্যপারে বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে থাকি যা চলমান প্রকিয়া। বেশ কিছুদিন আগে আমরা কৈখালী এলাকায় অভিযান পরিচালনা করেছিলাম। অচিরে এ অভিযান পরিচালনা করা হবে।”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *